ভারতকে ভিসা দিতে কড়াকড়ির অনুরোধ বাংলাদেশের!

0
13
Print Friendly, PDF & Email

বাংলাদেশি নাগরিকদের ভারতীয় ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপের অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ। নির্বাচনপূর্ব সহিংসতার পরিপ্রেক্ষিতে গত কয়েক সপ্তাহে স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি লোক ভারতে যাওয়ায় বাংলাদেশ সরকার এ অনুরোধ জানায় বলে দাবি করেছে কলকাতা পাসপোর্ট অফিস। এদিকে অতিরিক্ত প্রবেশ এবং অবাঞ্ছিত ঘটনা ঠেকাতে সীমান্তে সতর্কাবস্থায় রয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)।

শনিবার ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস পত্রিকা এ খবর দিয়েছে। বিভিন্ন চেকপোস্টের তথ্য অনুযায়ী কলকাতা পাসপোর্ট অফিস জানায়, গত কয়েক সপ্তাহে বহু বাংলাদেশি হিন্দু ও মুসলমান বৈধ ভিসা নিয়েই কলকাতায় প্রবেশ করেছে। স্বাভাবিকের তুলনায় এ সংখ্যা প্রায় কয়েক গুণ। এ বছরের ৬ ডিসেম্বর শুধু পেট্রাপোল চেকপোস্ট দিয়েই বৈধভাবে কলকাতায় প্রবেশ করেছে চার হাজার ১৮০ জন বাংলাদেশি। আগের পরিসংখ্যান অনুযায়ী এখানে গড়ে ৩৯০ জন বাংলাদেশি কলকাতায় প্রবেশ করত।

একই দিন হিলি সীমান্ত দিয়ে কলকাতায় এসেছে ২৪০ বাংলাদেশি, যেখানে গড়ে প্রতিদিন যেত মাত্র ৩০ জন। চ্যাংরাবান্ধা সীমান্তে তথ্য অনুযায়ী, এদিন এ চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেছে ৪৯৮ জন, যা স্বাভাবিকের তুলনায় প্রায় ২০ গুণ বেশি। একই অবস্থা মাহাদিপুর ও গোজাদাঙ্গা সীমান্ত চেকপোস্টেরও। প্রবেশকারীদের বেশির ভাগই চিকিত্সা-সংক্রান্ত ভিসায় ভারতে প্রবেশ করছে বলে পাসপোর্ট অফিস জানিয়েছে।

কলকাতা পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বেশির ভাগ প্রবেশের ঘটনা ঘটছে খুলনা ও যশোর সীমান্ত অঞ্চল দিয়ে।

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর একজন শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা প্রায় প্রতিদিনই অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ ইচ্ছুক অসংখ্য বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে দিই। কিন্তু তারা সব বৈধ ভিসাধারী, তাদের ফেরানো সম্ভব নয়।’ তিনি অবশ্য জানিয়েছেন কড়াকড়ি আরোপের পর গত কয়েক দিনে এ সংখ্যা কমে এসেছে। তিনি আরো বলেন, ‘সীমান্তের বিভিন্ন স্পর্শকাতর অঞ্চলে পাহারা বাড়াতে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ইতিমধ্যে নির্দেশ দিয়েছে।’

 

বিএসএফ দক্ষিণ বেঙ্গলের ডিআইজি এস পি তিওয়ারি বলেন, ‘আমরা সীমানে্ত সতর্ক অবস্থায় রয়েছি। তবে এখন পর্যন্ত কোনো অবাঞ্ছিত ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।’

 

Facebook Comments