বিজয়ের বাঁশি বাজাবেন খালেদা

0
4
Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা, ২৭ ডিসেম্বর- দাবি আদায়ের আন্দোলনে অবিচল রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এক্ষেত্রে তিনি কোনো ধরনের ছাড় দেবেন না। রাজপথের নেতাকর্মীদের নিয়ে তিনি বিজয়ের বাঁশি বাজাবেন। তার এমন মনোবলে প্রতিপক্ষ এখনো চিড় ধরাতে পারেনি।

বৃহস্পতিবার রাতে বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করার পর এমন কথাই জানিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা।

বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমদ, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজী এবং মো. খুরশীদ আলম। এক ঘণ্টারও বেশি সময় বিএনপি চেয়ারপারসন সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার সঙ্গে কথা বলে সাংবাদিক নেতারা বলেন, সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাকে ‘কনফিডেন্ট’ মনে হয়েছে। তিনি আন্দোলনের বিকল্প চিন্তা করছেন না। আন্দোলনের মাধ্যমে রাজপথের সহযোদ্ধাদের নিয়ে তিনি বিজয়ের বাঁশি বাজাবেন। নেতাকর্মীদের ধরপাকড়ে তার মনোবল একটুও দুর্বল হয়নি।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ‘গণতন্ত্র অভিযাত্রা’ কর্মসূচি সফল করতে খালেদা জিয়া অনড় রয়েছেন। সরকারের কোনো বাধাই তাকে কর্মসূচি থেকে পিছু হটাতে পারবে না।

সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাতের পর রাত ১২টার দিকে খালেদা জিয়া কার্যালয় থেকে বের হলে উপস্থিত সাংবাদিকরা তার দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেন। তিনি স্বভাবসুলভ হাসি দিয়ে বলেন, ‘আজকে আর কথা বলবো না।’

গত ২৪ ডিসেম্বর গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ঢাকা অভিমুখে ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ বা ‘গণতন্ত্র অভিযাত্রা’ কর্মসূচি ঘোষণা করেন খালেদা জিয়া। এরপর মধ্যরাত থেকেই তার বাসভবন এবং অফিসে অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়।

গত দুইদিনে খালেদা জিয়া নেতাকর্মীদের সঙ্গে দেখা করতে পারেননি। তবে বড়দিন উপলক্ষে খ্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশনের নেতাদের সঙ্গে রাজনৈতিক কার্যালয়ে তিনি শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। কিন্তু ওই অনুষ্ঠানে কোনো নেতাকে ঢুকতে দেয়নি পুলিশ। খালেদা জিয়ার আইনজীবী পরিচয় দিয়ে দলের যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহাবুব উদ্দিন খোকন বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। সঙ্গে ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এজে মোহাম্মদ আলী। পরে সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে খোকনকে আটক করে পুলিশ।

সার্বিক পরিস্থিতিতে বিএনপির পক্ষ থেকে স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। অজ্ঞাত স্থান থেকে পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় তিনি অভিযোগ করেন, নেত্রীকে (খালেদা জিয়া) নেতাকর্মী থেকে বিচ্ছিন্ন করতেই পুলিশ দিয়ে চেয়ারপারসনের কার্যালয় এবং বাসা অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। ২৯ ডিসেম্বরের কর্মসূচি বানচালের চেষ্টা করছে সরকার।’

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে আটটায় কার্যালয়ে আসেন বেগম খালেদা জিয়া। ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান কার্যালয়ে ঢোকার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। এমন পরিস্থিতিতে নেতাকর্মী ছাড়া নিঃসঙ্গ অবস্থায় অফিস করেন খালেদা। তবে কার্যালয়ে ছিলেন তার একান্ত সচিব এএসএম সালেহ আহমেদ, একান্ত সহকারী সচিব মো. সুরাতুজ্জামান।

Facebook Comments