ব্যারিস্টার নাজমুল হুদাকে বিএনএফের চেয়ারম্যান ঘোষণা

0
6
Print Friendly, PDF & Email

ব্যারিস্টার নাজমুল হুদাকে আবার বিএনএফের (বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট) চেয়ারম্যান করা হয়েছে। অথচ এ ব্যপারে তার সঙ্গে আলোচনাই করা হয়নি। ইতিপূর্বে হুদাকে সে দল থেকে বহি:স্কার করা হয়েছিল। হুদা বর্তমানে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। জেলা পর্যায়ের বিএনএফের আহ্বায়করা গতকাল শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনএফের বর্তমান চীফ কো-অর্ডিনেটর  এস এম আবুল কালাম আজাদকে বহি:স্কার করে দলের চেয়ারম্যান হিসাবে নাজমুল হুদার নাম ঘোষণা করেন।

লিখিত বক্তব্যে কুষ্টিয়া জেলা আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ জিয়া বলেন, নাজমুল হুদা  বিএনএফ ছেড়ে চলে যাওয়ার পর চীফ কো-অর্ডিনেটর আবুল কালাম আজাদ দলকে পকেট সংগঠনে পরিণত করেন। তিনি আয়-ব্যয়ের কোন হিসাবে দিচ্ছেন না। নিজেই সবকিছু কুক্ষিগত করে রেখেছেন। মেয়ের জামাইকে দিয়ে টাকা-পয়সার হিসাব নিকাশ করান। যার কারনে রাজনৈতিক দলটি বর্তমানে জামাই-শ্বশুরের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।

লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামাই-শ্বশুর মনোনয়ন বাণিজ্যে মেতে ওঠেছে। টাকার বিনিময়ে তারা এক আসনে একাধিক ব্যক্তিকে মনোনয়ন দিয়েছেন। ফেনী, বাগেরহাট ও কুষ্টিয়া জেলায় একাধিক ব্যক্তিকে বিএনএফের প্রতীক দেওয়াকে কেন্দ্র করে উচ্চ আদালতে রীট পিটিশন দায়ের হয়েছে। তাছাড়া নির্বাচন কমিশনের মনোনয়ন সনদে নির্ধারিত স্বাক্ষরের জায়গায় দলের সভাপতি/ চেয়ারম্যান/ মহাসচিব বা সমমর্যাদার নেতার স্বাক্ষর করার নিয়ম থাকলেও তিনি একাই সেখানে স্বাক্ষর করছেন। এ বিষযে মহাসচিবের কোন মতামত নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করা হয়নি।

বিএনএফের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক নাজমুল হুদাকে নতুন করে চেয়ারম্যান করার আগে তার সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে কীনা, এ প্রশ্নের জবাবে কুষ্টিয়া জেলা বিএনএফের পক্ষ থেকে বলা হয়, সংবাদ সম্মেলন শেষে তার সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি তাকে জানানো হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা আহ্বায়ক এস কে লিটন, টাঙ্গালের আহ্বায়ক আশরাফ সরকার,  গাজীপুরের এম এ সালাম শান্ত, শরীয়তপুরের আরিফুল ইসলাম ও কিশোরগঞ্জের খোরশেদ আলম প্রমূখ।

Facebook Comments