বিবিসি সংলাপে বক্তারা বাংলাদেশের গণতন্ত্রে জনগণের অংশগ্রহণ নেই

0
5
Print Friendly, PDF & Email

বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় জনগণের অংশগ্রহণ নেই। এখানকার গণতন্ত্র হলো দুই নেত্রীর গণতন্ত্র। তারাই এদেশের যাবতীয় বিষয়ে সদ্ধিান্ত গ্রহণ করেন। এমনকী দলীয় নেতাকর্মীরাও দুই নেত্রীর সামনে ভিন্নমত প্রকাশের সাহস পান না। বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপে আলোচকরা এমন মত প্রকাশ করেছেন। আজ সন্ধ্যায় রাজধানীর বিয়াম মিলনায়তনে সংলাপের ৫৩তম পর্বের ধারণ অনুষ্ঠিত হয়।

বিবিসি সংলাপে প্যানেল আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা-২ আসনের বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এর সাবেক সভাপতি ড. আসিফ ইব্রাহিম ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক ড. আমেনা মোহসিন। অনুষ্ঠানটি প্রযোজনা করেন ওয়ালিউর রহমান মেরাজ, উপস্থাপনা করেন সাংবাদিক আকবর হোসেন।

সংলাপে ‘দীর্ঘ মেয়াদে রাজনৈতিক সংকট নিরসনের লক্ষ্যে বাংলাদেশে কি কোন নতুন সাংবিধানিক ব্যবস্থার প্রয়োজন রয়েছে’ এমন প্রশ্ন নিয়ে আলোচনায় ড. আসিফ ইব্রাহিম বলেন, এদেশে আমরা গণতন্ত্র শব্দটি শুধু পেয়েছি। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কাছে আমরা কোন গণতন্ত্র পাইনি। স্বাধীনতার পর এত বছরে সব ক্ষেত্রে আমাদের উন্নতি ঘটেছে। শুধু রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে কোন উন্নতি ঘটেনি।’ তিনি আরো বলেন, ‘এদেশের গণতন্ত্র দুই নেত্রী কেন্দ্রীক। তাদের কথায় সব চলে। দলীয় নেতারাও নেত্রীকে প্রশ্ন করার সাহস রাখেন না।’

ড. আমেনা মোহসিন বলেন, ‘এদেশের গণতন্ত্রে জনগণ নেই। নেতা-নেত্রী কেন্দ্রীক দ্বি-দলীয় ব্যবস্থা চলছে। দুই জোটের বাইরে তৃতীয় কোন রাজনৈতিক শক্তির বিকাশ ঘটলে খুশি হতাম। তবে হতাশার কথা হলো এমন কোন রাজনৈতিক শক্তির বিকাশ ঘটছে না।’

নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, ‘দেশে এখন গণতন্ত্র নেই। যে নির্বাচনের ব্যবস্থা হচ্ছে সেখানে জনগণের অংশগ্রহণ নেই। জনগণ যেখানে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারছে না এমন নির্বাচন করে কোন লাভ নেই।’

Facebook Comments