হাসিনা / খালেদা – তালগাছ আমার

0
22
Print Friendly, PDF & Email

অহিংস পরম ধর্ম। বুদ্ধদেবের বাণী দিয়েই শুরু করলাম। দেশের বড় দুইটি দলের মধ্যে রাজনীতি নিয়ে যে অবস্থানের সৃষ্টি হয়েছে তা অতিতের সকল রাজনীতিকে দূরে ঠেলে দিয়ে আপন মহিমায় অনেকখানি এগিয়ে গেছে। এখন শুধুই ক্ষমতায় আঁকড়ে ধরে রাখবার নীতি নিয়ে উভয় দলই ব্যতিব্যস্ত। কে ক্ষমতায় যাবে আর কে বিরোধী দলে যাবে এটা কারও মুখ্য নয় মুখ্য বিষয় হলো ক্ষমতা আমার হাতে থাকতে হবে। সরকারী দলের বর্তমান রাজনীতির জের ধরেই ক্ষমতায় গেলে বিরোধী দলের গিয়ে দাড়ায় আরও কঠোর অবস্থানে। সবাই শুধু বিচার মানি তালগাছ আমার। এ না হলে আমাদের দেশের এমন চরম সঙ্কটের মধ্যে পড়তে হ’ত না। ভাবতে অবাক লাগে কেউ এক চুল ছাড় দিতে রাজী নয়। এর ফলে বর্তমানে দেশের জনগণ আজ গিয়ে দাড়িয়েছে খাদের কিনারে। যেখান থেকে পরিত্রানের একমাত্র উপায় হলো খাদে পড়া। আমার ঔদাত্য আহবান আপনারা বিশিষ্ট রাজনীতিবিদগণ অবশিষ্ট যা আছে তার উপর ভর করে দেখুন না একটা বার চিন্তা করে দেশের জনগণের স্বার্থে সমঝোতায় আসা যায় কিনা? যদি সমঝোতায় না আসা যায় তবে আমাদের জাতিকে এর চরম মূল্য দিতে হবে। আর কত প্রাণ, আর কত আহাজারী, আর কত খুন, দিনে দিনে বেড়েই চলেছে ত্রিমাত্রিক গুণ। সংবিধান নিয়ে টানা হেঁচড়া না করে নিজেদের মত করে কেউ কি পারে না ছাড় দিয়ে দেশের কল্যাণে এক হতে। পরিশেষে, শুধুই আকুতি, শুধুই মিনতি, হায়রে গর্বিত জাতি বাঙালী। চেয়ে দেখো সামনে অন্ধকার অমানিশার অশনিসঙ্কেত। আগে জানতাম ব্যক্তির চেয়ে দল বড়, দলের চেয়ে দেশ বড়। এখন এর উল্টো বাকী দিনগুলির দিকে চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া করার আর কিছুই নেই। আছে শুধু বুক ভরা জ্বালা, আকুতি, মিনতি। আসুন না আমরা সবাই এক হয়ে সমঝোতায় গিয়ে দেশটাকে আর পেছনে না নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাই। দেশটাকে ভালবেসে দেশপ্রেমিক হই। ক্ষমতা নয়, দাম্ভিকতা ভুলে একে অন্যের পাশে দাঁড়াই।

Facebook Comments