সুচিত্রা সেন খাবার না খেলেও ফুচকা খেতে চাইছেন

0
10
Print Friendly, PDF & Email

শ্রীপুর নিউজ: যাজিক মমতায় আচ্ছন্ন মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের পরিবার। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হাসপাতালে সুচিত্রা সেনকে দেখতে যাওয়ার পরই তার স্বাস্থ্যের সামান্য উন্নতি হওয়ায় সুচিত্রা তনয়া মুনমুন সেন একে ম্যাজিক মমতা বলে অভিহিত করেছেন। আর এই ম্যাজিক মমতা কাজে লাগছে বলেই গত তিন দিনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পাঁচবার ভেলভিউ ক্লিনিকে গিয়ে সুচিত্রা সেনকে দেখে এসেছেন। প্রথমবার তার সঙ্গে দেখা না করে চলে এলেও পরে সুচিত্র সেনের ইচ্ছাতেই মমতা তার সঙ্গে দেখা করেছেন। গত শুক্রবার বিকালে সুচিত্রার অবস্থার অবনতি হওয়ার খানিকক্ষণ পরেই মমতা ছুটে গিয়েছিলেন হাসপাতালে। সেখানে প্রায় তিন ঘণ্টা ছিলেন তিনি। নল লাগিয়ে বুকের কফ বের করার পর সুচিত্রা খানিকটা স্বস্তি পান। এরপরেই মমতা সুচিত্রার সঙ্গে দেখা করেন। তাদের মধ্যে বেশ খানিকক্ষণ কথা হয়। সেই সময় মুনমুন, রিয়া ও রাইমাও উপস্থিত ছিলেন। মমতা সুচিত্রাকে দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠার কথা বলেন। সুচিত্রা উঠে বসতে চাইলেও চিকিৎসকরা তার দুর্বলতার কথা ভেবে তা করতে দেননি। মমতা তাকে বলেন, সুস্থ হয়ে উঠুন। খিচুড়ি খাবেন তো? কি দিয়ে খাবেন? বেগুনি দিয়ে? সুচিত্রা খিচুড়ি খেতে খুব ভালবাসেন। তবে মমতার এই কথার উত্তরে সুচিত্রা জানান, তার ফুচকা খেতে খুব ইচ্ছা করছে। গত ক’দিন ধরেই সুচিত্রা চা-বিস্কুট ছাড়া তেমন কিছু খাচ্ছেন না। শরীর দুর্বল হয়ে পড়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, হার্ট, ব্লাডপ্রেসার, কিডনি সব ভাল থাকলেও ফুসফুসের সংক্রমণ কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না। যান্ত্রিকভাবে ফিজিওথেরাপির মাধ্যমে কফ বের করার ফলে সামান্য স্বস্তি পাচ্ছেন ঠিকই, কিন্তু ফের কফ জমে গেলেই প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। অক্সিজেন সাপোর্ট দিতে হচ্ছে রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা ঠিক রাখতে। তবে সুচিত্রা সেনের জ্ঞান পুরোপুরি থাকায় তার কথাও শুনতে হচ্ছে চিকিৎসকদের। সুচিত্রা টানা ভেনটিলেশনে থাকতে চাইছেন না। মেয়ে মুনমুন সেনও তা চাইছেন না। অন্যান্য সংক্রমণের ভয়ই এর কারণ। শনিবার দুপুরের মেডিকেল বুলেটিনে বলা হযেছে, সুচিত্রা সেন খাবার খেতে পারছেন না। ফলে সেই ঘাটতি মেটাতে স্যালাইনের মাধ্যমে যোগানো হচ্ছে। এদিন সকাল থেকেই তিনি ঘুমোচ্ছেন। জেগে উঠলেই তাকে খাওয়ানোর চেষ্টা হবে। হাসপাতালে সুচিত্রার পরিবার প্রায় সারা দিনই থাকছেন। মুনমুন মাঝে মাঝেই চোখের পানি ধরে রাখতে পারছেন না। মমতাও মুনমুনকে সান্ত্বনা দিয়েছেন। কাঁদতে বারণ করার পর বলেছেন, মহানায়িকা নিশ্চয়ই ভাল হয়ে উঠবেন। কিন্তু ১৫ দিন টানা চিকিৎসার পর উন্নতির তেমন লক্ষণ দেখতে পাওয়া যাচ্ছে না। এ মুহূর্তে ভাল থাকলেও কিছুক্ষণ পরেই অবস্থার অবনতি হচ্ছে। চিকিৎসকরাও তাই শঙ্কিত।

Facebook Comments
শেয়ার করুন