শ্রীপুরে ভ্রাম্যমান আদালতে সাজা দিয়েও বন্ধ হচ্ছে না অবৈধ গ্যাস সংযোগ।

0
13
Print Friendly, PDF & Email

গাজীপুর নিউজ: উপজেলার মাওনা চৌরাস্তা, ভাংনাহাটি, সিএন্ডবি, গড়গড়িয়া মাষ্টারবাড়ী, পুষ্পদাম, নতুন বাজার, বৈরাগীরচালা, রাজেন্দ্রপুর, সাটিয়াবাড়ী, নোয়াগাঁও, ধলাদিয়া, তেলিহাটি, টেপিরবাড়ী, জৈনা বাজার, মুলাইদ সহ প্রায় অর্ধশতাধিক স্থানে অর্ধ লক্ষাধিক অবৈধ গ্যাস সংযোগের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার গুরুত্বপুর্ন ও শিল্পাঞ্চল খ্যাত এলাকায় রীতিমত ৫০ হাজার টাকা থেকে দুই লক্ষাধিক টাকা পর্যন্ত ঘুষ দিয়ে অবৈধ গ্যাস সংযোগের হিড়িক পড়েছে। অবৈধ ব্যবহারকারীদের প্রলুব্ধ করতে রীতিমত সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বিশাল সুযোগ সুবিধার লোভনীয় অফার দিয়ে স্থানীয় দালালচক্র মোটা টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এদের সাথে তিতাস গ্যাস কোম্পানীর হাতে গোনা ৪/৫জন কর্মকর্তা  ও কর্মচারী সহ তিতাস গ্যাসের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারের কোটি কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে এ অবৈধ সংযোগ দেয়ার ফলে স্থানীয় প্রশাসন ভূমিকা রাখতে গিয়ে রীতিমত হিমশিম খাচ্ছে। প্রতিরাতেই কোন না কোন স্থানে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেয়া হচ্ছে। প্রতিরাতেই স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ টহল দিয়ে ধুরন্ধর ওই চক্রকে ধরতে পারছে না। কিন্তু অবৈধ সংযোগ দেয়া হচ্ছেই।অবৈধ সংযোগের ফলে সুবিধা দিচ্ছে গ্যাস ব্যবহারকারী, অবৈধ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে তিতাস কোম্পানীর কর্মকর্তা কর্মচারী, দু’জনের মাঝামাঝি টাকার পাহাড় গড়ছে স্থানীয় দালালচক্র। সামপ্রতিক সময়ে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে এসে পৌরসভাধীন আনসার রোড সংলগ্ন কেওয়া গ্রামের তিতাস গ্যাস কোম্পানীর কতিপয় কর্মকর্তা নাজেহাল হয়। কিন্তু রহস্যজনক কারনে কর্মকর্তারা থানায় মামলাতো দুরের কথা একটি জি.ডিও করেনি। কর্মকর্তাদের নাজেহাল করার সময় স্থানীয় কতক সংবাদকর্মী সংবাদ সংগ্রহের স্বার্থে ছবি তুলতে গেলে তিন সাংবাদিক অবৈধ সংযোগকারীদের হামলার শিকার হয়। এ ব্যাপারে শ্রীপুর থানায় একটি মামলা হয়। এসব বিষয়ে উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটিতে আলোচনা উঠলে প্রশাসন ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেয়। তার প্রেক্ষিতে ২ জানুয়ারী সহকারী কমিশনার (ভূমি) ৪ দরিদ্র কামলাকে ৭ হাজার টাকা জরিমানা করে। একই আদালত ৪ জানুয়ারী রাতে কেওয়া দক্ষিন খন্ড গ্রামে অবৈধ সংযোগ নেয়ার সময় ২ কামলাকে আটকিয়ে তিন মাসের সাজা দেয় ভ্রাম্যমান আদালত। ৬ জানুয়ারী রাতে বৈরাগীর চালা গ্রামের জনৈক জসিম ও ইসলাম উদ্দিনের বাড়ীতে অবৈধ সংযোগ নেয়ার সময় ২ কামলাকে পুলিশ আটক করে এবং ভ্রাম্যমান আদালত ২ মাস করে সাজা দেয়। ক্ষোভের সাথে কয়েক কামলা জানান, আমরা হইলাম রোজকামলা, টেকা দেয় কাম করি। কিন্তু যারা লাখ লাখ টাকা নিয়ে অবৈধ ভাবে গ্যাস সংযোগ নিচ্ছে ও যারা দিচ্ছে তাদের কিছুই হচ্ছেনা। অর্থাৎ কি না সুবিধা নেয় আমলা সাজা খাটে কামলা। এ ব্যাপারে শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আজিজ হায়দার ভূইয়া জানান, প্রশাসন অবৈধ গ্যাস সংযোগ বন্ধ করার জন্য প্রায় প্রতি রাতেই চেষ্টা তদবীর করে যাচ্ছে। আমরা যে মেশিনটির মাধ্যমে পাইপ থেকে পাইপের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে সেই মেশিনটি আটকানোর জন্য জোরে শোরে চেষ্টা করছি। অবৈধ সংযোগ দেয়ার জন্য দুস্কৃতিকারীরা রাতটাকেই বেছে নেয়।

Facebook Comments
শেয়ার করুন