একটি শিশুর জন্ম ইতিহাস – সমকামী বিয়ে

0
24
Print Friendly, PDF & Email

গাজীপুর নিউজ ডেস্কঃ গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রের টেনেসি অঙ্গরাজ্যের একটি শিশু ইতিহাস রচনা করেছে। এমিলিয়া মারিয়া জেসটি নামের ঐ শিশুর জন্ম সনদে বাবার নামের জায়গায় এক নারীর নাম লেখা রয়েছে। ঐ রাজ্যের জন্য এমন ঘটনা এই প্রথম। শিশুটির বাবা-মা দুই জনেই নারী, অর্থাৎ সমকামী। তবে তাঁদের এই সম্পর্ক নিয়ে শিশুটি ভূমিষ্ঠ হওয়ার আগে থেকেই চলছে আইনি জটিলতা। যুক্তরাষ্ট্রের অনেক রাজ্যে সমকামী বিয়ে বৈধতা পেলেও টেনেসিতে পায়নি। কারণ টেনেসি বেশ রক্ষণশীল রাজ্য। এমনকি সেখানে এখন পর্যন্ত কেউ সমকামী বিয়ের জন্য আবেদনও করেনি। শিশুটির মা-বাবা ভ্যালেরিয়া টাংকো এবং সোফি জেসটি নিউ ইয়র্কে বিয়ে করেন, যেখানে সমকামী বিয়ে বৈধ। এর পর তাঁরা চলে আসেন টেনেসিতে।
গত বছরের আগস্টে যখন ভ্যালেরিয়া কৃত্রিম উপায়ের অন্তঃসত্ত্বা হন, তখন টেনেসির আইন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকা রেজিনা ল্যামবার্ট এর সঙ্গে দেখা করেন ভ্যালেরিয়া ও সোফি। টেনেসির আদালতে তাদের সম্পর্কের বৈধতার জন্য আবেদন করার পরামর্শ চান তারা। ল্যামবার্ট তাঁদের সম্পর্কের গভীরতা দেখে আকৃষ্ট হন এবং তাঁদের সাহায্যে এগিয়ে আসেন। এ সময় সমকামী দুই পুরুষও তাঁদের সাথে আবেদন করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। এমিলিয়ার জন্মের সাথে সাথে জন্ম সনদে যখন বাবার নামের জায়গায় সোফির নাম লেখার কথা বলা হয়, তখন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তা মানতে রাজি হননি। পরে ল্যামবার্ট স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে অনুমতি চাইলে অস্থায়ীভাবে নাম লেখার অনুমতি দেওয়া হয়। বর্তমানে তাঁদের আবেদনটির ওপর টেনেসির কেন্দ্রীয় আদালতে শুনানি চলছে।
যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যের মধ্যে ৩৩টি রাজ্যে সমকামী বিয়ে এখনো বৈধ নয়। গত চার বছরে সমকামী বিয়ের পক্ষে মত পাল্টেছেন এমন ব্যক্তিদের তালিকায় রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নাম। ২০০৮ সালে নির্বাচনি প্রচারণার সময় বারাক ওবামা সমকামী বিয়ের বিপক্ষে অবস্থান নিলেও, ২০১২ সালের নির্বাচনের আগে তিনি সমকামী বিয়ের পক্ষে অবস্থান নেন।

Facebook Comments
শেয়ার করুন