মেয়েরাই বলছে, ‘এমন কাপড় চাই না’

0
15
Print Friendly, PDF & Email
meyera

গাজীপুর২৪.কম নিউজ ডেস্কঃ মেয়েরা অনেক বেশি খোলামেলা আর সংক্ষিপ্ত পোশাক পরছে বলেই ধর্ষণ বাড়ছে- এমন যাঁরা ভাবেন, তাঁদের সমালোচনা হয়েছে অনেক। এবার হংকংয়ের ক্যাথে প্যাসিফিক এয়ারওয়েজের মেয়েরাও খোলামেলা পোশাক পরায় আপত্তি জানিয়েছেন।
ভারতে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় কেউ কেউ কারণ হিসেবে মেয়েদের সংক্ষিপ্ত এবং উদ্দীপক পোশাকের কথা বলেছিলেন। এমন বক্তব্য তো মানবাধিকারে শ্রদ্ধা আছে এমন কোনো মানুষ সমর্থন করতে পারেন না। কেউ তা করেছেন বলে জানাও যায়নি। তবে হংকংয়ের ক্যাথে প্যাসিফিক এয়ারওয়েজের ফ্লাইট অ্যাটেন্ডেন্টরা অবাক করেছেন। লিখিতভাবেই তাঁরা জানিয়েছেন, ২০১১ সাল থেকে তাঁদের যে পোশাক পরতে দেওয়া হচ্ছে তা খুবই সংক্ষিপ্ত এবং আঁটসাঁট, যৌন নিপীড়ন এড়াতে চান বলে এমন পোশাক তাঁরা পরতে নারাজ!
খোদ ক্যাথে প্যাসিফিক এয়ারওয়েজ ফ্লাইট অ্যাটেন্ডেন্ট ইউনিয়নই (এফএইউ) জানিয়েছে এ খবর। সংগঠনটি জানায়, এয়ারওয়েজের মেয়ে ফ্লাইট অ্যাটেন্ডেন্টদের বিমানে যে পোশাক পরতে দেওয়া হয়, তার ওপরের অংশ, অর্থাৎ ব্লাউজটা খুবই ছোট। ফলে নিচু হয়ে কাজ করতে গেলেই বক্ষদেশ উন্মোচিত হয়ে যায়। আবার পোশাকের নিচের অংশ, অর্থাৎ স্কার্টটা এত আঁটসাঁট যে শরীরের ঢেকে রাখা অনেক অংশের উপস্থিতিই বাইরে থেকে অনুমান করা যায় ৷এ অবস্থায় ফ্লাইট অ্যাটেন্ডেন্টদের দাবি, এমন পোশাক থেকে তাঁদের ‘রেহাই’ দেওয়া হোক। তাঁদের আশঙ্কা, এমন পোশাক পরলে যৌন নিপীড়ন বেড়ে যাবে।
তাঁদের এ আশঙ্কা যে অমূলক নয়, তা পরিষ্কার হয়ে গেছে চীনের সমান অধিকার কমিশনের একটি জরিপ। জরিপ বলছে, গত এক বছরে ক্যাথে প্যাসিফিকের অন্তত ২৭ ভাগ ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছেন। এ জরিপে ৩৯২জন ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট অংশ নিয়েছেন ৷তাঁদের শতকরা ৮৬ ভাগই নারী।
এদিকে নারী ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্টদের কাছ থেকে পোশাক নিয়ে অসংখ্য আপত্তিপত্র পাওয়ার পর এফএইউও ক্যাথে প্যাসিফিক কর্তৃপক্ষকে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে ৷বেশি কিছু তো চাওয়া হচ্ছে না ৷ কেউ পোশাকের ডিজাইন বদলানোর কথা বলেননি ৷সবাই চান, ব্লাউজটা একটু বড় করা হোক, যাতে বক্ষযুগল ঢেকে রাখা যায়, আর স্কার্টটা একটু ঢিলেঢালা হোক, যাতে কোমরের নিচের সবকিছু কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় অদৃশ্য থাকে।
এফএইউর অনুরোধের পর বিমান কর্তৃপক্ষেরও টনক নড়েছে। চীনের ইংরেজি দৈনিক মর্নিং পোস্টকে ক্যাথে প্যাসিফিক বলেছে, ‘আমরা কোনো ধরনের নিপীড়নই বরদাশত করি না। যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে আমরা খুব কঠোর। এই পোশাকে অস্বস্তি বোধ করলে ক্রুরা যেকোনো সময় এসে বদলে নিতে পারেন।’ সূত্র : ডিডাব্লিউ

Facebook Comments
শেয়ার করুন