কালিয়াকৈরে সোহাগ পল্লী পার্ক থেকে খদ্দের ও যৌনকর্মীসহ ১৮ জন আটক

0
151
Print Friendly, PDF & Email

কালিয়াকৈর উপজেলার কালামপুর এলাকায় অবস্থিত দেশের সুনামধন্য বিনোদনপার্ক ও পিকনিক স্পট সোহাগ পল্লীতে গড়ে উঠেছে দেহ ব্যবসার আখড়া।  দিনে ব্যবহার হচ্ছে পার্ক আর রাতে সহজলভ্য দেহ ব্যবসার আবাসিক হোটেল।  দিন দিন এর দৌরাত্ব্য বেড়েই চলছিল।  শুক্রবার ভোরের দিকে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৮ জন যুবতী ও ১০ জন যুবককে আটক করে। আটককৃতরা হল, ঢাকার মোহাম্মদ পুরের  সিনথিয়া (১৭), অথৈ (২২), আশুলিয়ার দিপু রায়হান (২৯), মাসুদ মিয়া (২৫), বরিশালের বেতার্গীর চম্পা (২৫), মনি (১৯), বরগুনার পারভীন (১৭), চাদপুর শহরতলীর মিতু (১৬), গাজীপুর জয়দেব পুরের রশ্মি আক্তার (১৯), মুজাহিদুল (৩২), ফরহাদ হোসেন, ঢাকা দক্ষিনখানের মুন আক্তার (২০), গাজীপুরের কোনাবাড়ীর রফিকুর (৩০), ঢাকা বংশালের রুবেল সিকদার (২৪), রাসেল (২৭), ঢাকা লালবাগের জাবেদ আলী (২৮), কালিয়াকৈর পিরেরটেকীর মুনির হোসেন (২৩) ও কুমিল্লার লাকসামের জনি।

কালিয়াকৈর থানার ডিউটি অফিসার নজরুল ইসলাম জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে থানার তদন্ত অফিসার মাসুদ রানার নের্তৃত্বে সোহাগ পল্লীতে অভিযান চালিয়ে নির্ধারিত প্রতি ঘর থেকে মোট ১৮ জনকে অপ্রীতিকর অবস্থায় আটক করে। আটক করার সংবাদটি ছড়িয়ে যাবার পরপরই আসামীদের ছাড়িয়ে নিতে কালিয়াকৈর উপজেলা ও আশপাশের উপজেলার রাজনৈতিক নেতা কর্মীরা থানার আশপাশে ঘোর ঘোর করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।  ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ বিএনপির নেতা কর্মীদেরও থানার ভিতর বেশ আনাগুনা করতে দেখা যায়।  গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, বেশ কয়েকজন এস আইকে তারা ঘুষের অফার করে।  এছাড়াও নানা সময়ে আটককৃত আসামিদের ছাড়িয়ে নিতে নেতা কর্মীরা রাজনৈতিক ক্ষমতার অপ-ব্যবহার করে বলেও জানা যায়।  আটকের ঘটনায় থানায় মামলা প্রক্রিয়া চলছে।

Facebook Comments
শেয়ার করুন