বিদেশি বন্ধুদের নতুন ক্রেস্ট দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়নি

0
5
Print Friendly, PDF & Email
sma 859928427sm 961142558

বিদেশি বন্ধুদের নতুন করে ক্রেস্ট দেওয়ার কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। 

 

বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয় সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদকে একটি স্পষ্টীকরণ চিঠিতে জানায়, বিদেশি বন্ধুদের নতুন করে ক্রেস্ট দেওয়ার কোনো সিদ্ধান্ত নেই মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের। 

 

এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার এক্তিয়ার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের বলেও জানানো হয় চিঠিতে। 

 

এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ তার কাছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পাঠানো চিঠির সূত্র ধরে জানান, মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য বিদেশি বন্ধুদের দেওয়া সম্মাননা ক্রেস্টে স্বর্ণ জালিয়াতির ঘটনা প্রকাশের পর খাঁটি স্বর্ণ দিয়ে ফের তৈরি নতুন ক্রেস্ট পাঠানো হবে সম্মাননাপ্রাপ্তদের। 

 

তিনি বাংলানিউজকে বলেন, সোমবার মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় থেকে একটি চিঠি পেয়েছি। সেখানে বলা হয়েছে ক্রেস্টে স্বর্ণ জালিয়াতির বিষয়ে একটি সংসদীয় তদন্ত উপকমিটি করা হয়েছে। এ কমিটির তদন্তের পর সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান থেকে অর্থ নিয়ে খাঁটি স্বর্ণ দিয়ে ক্রেস্ট তৈরি করে বিদেশি বন্ধুদের কাছে পাঠানোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

 

সম্প্রতি পত্র-পত্রিকায় মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য বিদেশি বন্ধুদের সম্মাননা ক্রেস্টে স্বর্ণ জালিয়াতির ঘটনা প্রকাশিত হয়। 

 

এ জালিয়াতির ঘটনা জানাজানির পর এ নিয়ে শহীদ পরিবারের এক সদস্য নতুন করে ক্রেস্ট তৈরি করে হাইকমিশনের মাধ্যমে বিদেশি বন্ধুদের কাছে তা পৌঁছে দেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে একটি রিট করেন। 

 

এ রিট আবেদনের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। 

 

মনজিল মোরসেদ আরো জানান, আপাতত রিট আবেদনটি কার্যতালিকার বাইরে রয়েছে। যদি নতুন ক্রেস্ট না পাঠানো হয়, তাহলে আমরা রিট আবেদনটি শুনানির উদ্যোগ নেবো।  

 

স্বাধীনতার ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অবিস্মরণীয় অবদানের জন্য বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়ক, রাজনীতিবিদ, দার্শনিক, শিল্পী-সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবী, বিশিষ্ট নাগরিক ও সংগঠনকে সম্মাননা দেয় সরকার। সম্মাননার স্মারক হিসেবে বিশিষ্টজনদের একটি করে ক্রেস্ট দেওয়া হয়। প্রতিটি ক্রেস্টে এক ভরি স্বর্ণ ও ৩০ ভরি রুপা থাকার কথা ছিল। কিন্তু সম্মাননা দেওয়ার সময় বিএসটিআইয়ে একটি ক্রেস্ট পরীক্ষা করায় মন্ত্রণালয়। তাতে দেখা যায়, ক্রেস্টটিতে এক ভরির জায়গায় সোয়া তিন আনা স্বর্ণ এবং ৩০ ভরি রুপার বদলে ৩০ ভরি পিতল, তামা ও দস্তা দেওয়া হয়েছে।

 

প্রকাশিত খবরের সত্যতা পাওয়া যায়। তদন্ত কমিটি নথিপত্র পর্যালোচনা ও বিভিন্ন পর্যায়ের মতামত নিয়ে এবং একটি ক্রেস্ট সংগ্রহ করে আবার পরীক্ষা করায়। পরীক্ষায় দেখা গেছে, ওই ক্রেস্টে স্বর্ণ বা রুপার কোনো অস্তিত্বই নেই।

Facebook Comments