আবার যুদ্ধের পথে ইরাক

0
9
Print Friendly, PDF & Email
irak

গাজীপুর২৪.কম নিউজ ডেস্ক : ইরাক পরিস্থিতি ভয়াবহ দিকে মোড় নিচ্ছে৷ একিটর পর একিট এলাকার নিয়ন্ত্রণ চলে যাচ্ছে জঙ্গিদের হাতে৷ তাদের প্রতিরোধের জোর প্রচেষ্টা সত্ত্বেও তেমন কিছু করে উঠতে পারছে না সরকারি বাহিনী৷ এ অবস্থায় ইরাক সরকারকে প্রয়োজনে সামরিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র৷ ইতিমধ্যে তারা যুদ্ধবিমানবাহী একটি রণতিরও পাঠিয়েছে আরব উপসাগরে৷ কিন্তু প্রতিবেশী দেশে বাইরের সামরিক হস্তক্ষেপের বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছে ইরান৷ খবর এএফপি ও বিবিসির৷
আল-কায়েদা-সমর্থিত সুিন্নপন্থী জঙ্গিরা ঠিক এক সপ্তাহ আগে অভিযান শুরু করেছিল৷ এই এক সপ্তাহে তারা পুরো একটি প্রদেশ এবং অন্য তিনটি প্রদেশের অংশবিশেষ নিজেদের দখলে নিয়ে নিয়েছে৷ কিন্তু তাদের মোকািবলায় নিরাপত্তা বাহিনী দৃশ্যত বড় কোনো সফলতা দেখাতে পারেনি৷ অনেক ক্ষেত্রে তারা অস্ত্র, গোলাবারুদ ও সাঁজোয়া যান ফেলে পিছু হটে৷
ইরাকি বাহিনীর শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তারা জানান, তাঁরা পুনরায় শক্তি সঞ্চার করে জঙ্গিদের হটাতে জোর উদ্যমে এগিয়ে চলছেন৷ সেনারা বাগদাদের উত্তরের দুটি শহর থেকে জঙ্গিদের হটাতে সক্ষম হয়েছে৷ তাদের সঙ্গে শিগগির যোগ দেবে অসংখ্য স্বেচ্ছাসেবী৷
তবে দেশের মধ্যাঞ্চলে কিন্তু স্বেচ্ছাসেবী সংগ্রহের একটি কেন্দ্রে গতকাল রোববার মর্টার হামলা চালায় জঙ্গিরা৷ এতে তিন সেনাসহ অন্তত ছয়জন নিহত হয় বলে জানায় পুলিশ৷
লড়াইয়ের মাঠে যখন এ অবস্থা, তখন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, বাগদাদের দিকে জঙ্গিদের অগ্রসরের গতি রোধ করতে সম্ভাব্য সব ধরনের পদক্ষেপের কথা বিবেচনা করছে তাঁর সরকার৷ তবে ইরাকে আবার মার্কিন যুদ্ধসেনা পাঠানোর সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন তিনি৷
সাদ্দাম হোসেনকে উৎখাতে ২০০৩ সালে ইরাকে অভিযান শুরু করে মার্কিন নেতৃত্বাধীন বাহিনী৷ আট বছরের মাথায় ইরাক থেকে সব মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা হয়৷ এর আগে ও পরে ইরাকে একটি দক্ষ ও সক্ষম নিরাপত্তা বাহিনী গড়ে তুলতে কোটি কোটি মার্কিন ডলার ব্যয় করেছে যুক্তরাষ্ট্র৷ এর পরও এত দ্রুত সেই বাহিনী কীভাবে এতটা ভেঙে পড়ল, তা নিয়ে বিরোধী রিপাবলিকানদের দিক থেকে জোর সমালোচনার মুখে আছে ওবামা প্রশাসন৷
মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনের মুখপাত্র জন কিরবি জানান, ইরাক সংকট সামাল দিতে জঙ্গিবিমানবাহী রণতরি ইউএসএস জর্জ এইচ ডব্লিউ বুশকে আরব উপসাগরে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী চাক হেগেল৷
যুক্তরাষ্ট্রের এ ঘোষণায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ইরান৷ দেশটি বলেছে, বাইরের কোনো ধরনের সামরিক হস্তক্ষেপ ইরাকের পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলবে৷
ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মার্জিহ আফখাম বলেন, ‘সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সক্ষমতা ও প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি ইরাকের আছে৷ সেখানে বাইরে থেকে কোনো হস্তক্ষেপে যদি পরিস্থিতি আরও জটিল হয়, তাহলে তা ইরাক বা এই অঞ্চলের জন্য ভালো হবে না৷’
তবে এর এক দিন আগে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি কিছুটা ভিন্ন কথা বলেন৷ তিনি বলেন, ইরাকের সুন্নি জঙ্গিদের ঠেকাতে যুক্তরাষ্ট্র যদি কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নেয়, তাহলে ইরানও তাদের সহযোগিতা করবে৷
এদিকে ইরাকের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য পরোক্ষভাবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে দায়ী করেছে সিরিয়ায় জাতিসংঘ ও আরব িলগের সাবেক বিশেষ দূত লাখদার ব্রাহিমি৷ তাঁর মতে, প্রতিবেশী দেশ সিরিয়ার সংকটকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় অবহেলা করায় তা ছড়িয়ে পড়েছে ইরাকেও৷ গতকাল তিনি বার্তা সংস্থাকে বলেন, ‘এটা খুব সাধারণ নিয়ম, এ ধরনের সংঘাত (সিরিয়া) কোনো একটি দেশের সীমানায় সীমাবদ্ধ থাকে না৷’

Facebook Comments
শেয়ার করুন