এক কমিটিতে আওয়ামী লীগের ১১ বছর

0
20
Print Friendly, PDF & Email
gazipur-zila-total

গাজীপুর জেলায় আওয়ামী লীগের রাজনীতি চলছে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি দিয়ে। বিএনপির জেলা কমিটির মেয়াদও প্রায় শেষ পর্যায়ে। গত বছরের প্রথম দিকে গাজীপুর সিটি করপোরেশন গঠিত হলেও কোনো দলেরই নেই মহানগর কমিটি। উভয় দলের বেশির ভাগ সহযোগী সংগঠন দীর্ঘদিন চলছে মেয়াদোত্তীর্ণ ও আহ্বায়ক কমিটির মাধ্যমে। ফলে কোনো দলেই নতুন ও তরুণ নেতৃত্ব আসার সুযোগ পাচ্ছে না।

 

আওয়ামী লীগ : গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ ২০০৩ সালে সম্মেলনের মাধ্যমে বর্তমান মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হককে সভাপতি ও টঙ্গী পৌরসভার সাবেক মেয়র আজমত উল্লা খানকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা কমিটি গঠিত হয়। নিয়ম অনুযায়ী কমিটির মেয়াদ তিন বছর হলেও দীর্ঘ ১১ বছর পার হলেও নতুন কমিটি হয়নি। এদিকে গাজীপুর সিটি করপোরেশন গঠিত হওয়ায় এখানে জেলা ও জেলার সমমর্যাদা সম্পন্ন মহানগরে আওয়ামী লীগসহ সব অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কমিটি হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু মহানগরের বয়স প্রায় দেড় বছর হলেও মহানগর আওয়ামী লীগ বা মহানগরের ৫৭টি ওয়ার্ডে কোথাও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কাঠামো তৈরি করা হয়নি। গাজীপুর জেলা যুবলীগের কমিটি হয়েছে প্রায় ৬ বছর আগে। জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ প্রায় ১০ বছর আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটি হয়েছে প্রায় ৬ মাস, এখনও সম্মেলন হয়নি। সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পর সম্মেলন ছাড়াই গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা হয়েছে। সম্প্রতি জেলা কৃষক লীগের কমিটি ভেঙে দিয়ে জেলা ও মহানগরের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। গাজীপুর শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকা হলেও শ্রমিক লীগের কর্মকাণ্ড তেমন জোড়ালো নয়। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজমত উল্লা খান বলেন, ২০০৩ সালে জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হলেও কেন্দ্রের নির্দেশে জেলা কমিটি সব কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

 

বিএনপি : ২০১১ সালের জুন মাসে একেএম ফজলুল হক মিলনকে সভাপতি ও কাজী ছাইয়েদুল আলম বাবুলকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। এখন পর্যন্ত মহানগরের কোনো কমিটি গঠিত হয়নি। ১৪ বছর আগে সরাফত হোসেনকে সভাপতি ও হান্নান মিয়া হান্নুকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠন করা হয়। সরাফত হোসেন ছাত্রদলের সভাপতির পাশাপাশি বর্তমানে জেলা বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক পদে রয়েছেন। হান্নান মিয়া হান্নু ছাত্রদলের জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক পদের পাশাপাশি জেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এবং গত গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন। অপরদিকে ১৪ বছর আগে মো. এমদাদ খানকে সভাপতি ও আবদুর রাজ্জাককে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা যুবদলের কমিটি গঠন করা হয়েছে। মহিলা দল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের অবস্থাও একই রকম। গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি একে এম ফজলুল হক মিলন বলেন, গাজীপুর জেলা বিএনপি এখন যে কোনো সময়ের চেয়ে শক্তিশালী।

 

জাতীয় পার্টি : হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত ছিলেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) কাজী মাহমুদ হাসান। গত ৪ ফেব্রুয়ারি তার আকস্মিক মৃত্যুর পর ২০ ফেব্রুয়ারি তার ছেলে কাজী সাজেদ হাসান শুভকে সভাপতি ও আসাদ সিদ্দিকীকে সাধারণ সম্পাদক করে জাতীয় পার্টির গাজীপুর মহানগর কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামকে সভাপতি ও মো. মোস্তাফিজুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে গাজীপুর জেলা জাতীয় পার্টির কমিটি গঠন করা হয়। নতুন জেলা ও মহানগর কমিটি গঠিত হলেও কোনো দলীয় কার্যক্রম চোখে পড়ে না।

 

জেলায় জামায়াতে ইসলামীর প্রকাশ্যে তেমন কোনো কার্যক্রম চোখে পড়ে না। বিগত সময়ে হরতাল অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে তাদের বহু নেতা-কর্মী মামলার আসামি হয়েছেন। গ্রেফতার হওয়ার ভয়ে তারা গাঢাকা দিয়েছেন।

 

পূর্বে প্রকাশিতঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন

Facebook Comments