নারায়ণগঞ্জে আ.লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে আহত ১৫

0
9
Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট: নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের শুভকরদী গ্রামে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধের জেরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থিত দুই দু’পক্ষের কয়েক দফা সংঘর্ষে পুলিশ, সাংবাদিকসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ২৩ রাউন্ড গুলিবর্ষণ করেছে। শুক্রবার দুপুর ৩টা হতে সন্ধ্যা পর্যন্ত থেমে থেমে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। বন্দর থানার ওসি পরিদর্শক (তদন্ত) মোকাররম হোসেন জানান, ‘শুভকরদী গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা বনি আমিন ও বিএনপি নেতা আমিনুল ইসলামের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই জমির সীমানা সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। এরই জেরে শুক্রবার দুপুরে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই সময় একটি মসজিদের ভেতরেও হামলার ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে পুলিশের এক এএসআই ও এক কনস্টেবল আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ২৩ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।’

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার জুমার নামাজের পরেই বনি আমিন ও আমিনুল ইসলামের লোকজনদের মধ্যে প্রথমে বাকবিতণ্ডা হয়। পরে দুই পক্ষই লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে একে অন্যের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। বিকেলে দুই পক্ষের মধ্যে আবারও সংঘর্ষ শুরু হয়। ওই সময়ে একটি মসজিদেও দুই পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে পুলিশের এএসআই কামরুল ইসলাম, কনস্টেবল সোহেল, স্থানীয় একটি দৈনিকের সাংবাদিক জিএম মজনু, শাকির আহমেদ বাপ্পীসহ অন্তত ১৫জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে তাজিনুর বেগম (২৫), আফতুননেছা (৫৫), ইমন (২৬), রমিজা বেগম (৫০), বনি আমিন (৩২), আঁখিদা (৩৫), কাপাতুন (৪০) এর পরিচয় জানা গেছে। তাদেরকে স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে নেয়া হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে আশেপাশের বসতবাড়ি, দোকানপাটে ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হয়। একটি সিএনজিতেও অগ্নিসংযোগ করে দুর্বৃত্তরা। অগ্নিকাণ্ডের সংবাদ পেয়ে বন্দর ফায়ার সার্ভিসের ২টি ইউনিট দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে সিএনজির আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পুলিশ উভয় গ্রুপের ৩ জনকে আটক করেছে। আটকরা হলো খবির উদ্দিন (৬০) মুরাদ (৪০) ও তাওলাদ (৩৫)।

Facebook Comments
শেয়ার করুন