জানাজা-দাফনে ছিলনা বিএনপি, জামায়াতের ২ শীর্ষ নেতাও

0
19
Print Friendly, PDF & Email
9 41355 0

ডেস্ক রিপোর্ট: ২০দলীয় জোটের অন্যতম শরিক জামায়াতের সাবেক আমিরের মৃত্যুতে শোক জানায়নি বিএনপি। মানবতাবিরোধী অপরাধে দন্ডপ্রাপ্ত গোলাম আযমের জানাজায়ও বিএনপির কোনো শীর্ষ নেতাকে দেখা যায়নি। তবে বিএনপির একমাত্র নেতা ও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ব্যক্তিগতভাবে এই মৃত্যুতে সমবেদনা জানিয়েছেন এবং অংশ নিয়েছেন শোক র‌্যালিতে। বৃহস্পতিবার রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যবরণ করেন ৭১ সালে মানবতাবিরোধী অপরাধে দন্ডপ্রাাপ্ত জামায়াত নেতা অধ্যাপক গোলাম আযম। মৃত্যুর পর জামায়াতের সাবেক আমিরের মরদেহ তার মগবাজারের বাসায় শনিবার দুপুর পর্যন্ত রাখা হয়। সেখানে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ ছাড়াও অনেকেই তার মরদেহ দেখতে যায়। ২০ দলীয় জোটের কয়েকটি শরিক দলের শীর্ষ নেতারাও ছিলেন। তবে কোনো বিএনপি নেতাকে দেখা যায়নি। শনিবার দুপুরে বায়তুল মোকাররমে জানাজা শেষে জামায়াত ইসলামের নেতৃত্বে একটি শোক মিছিল বের হয়। রাজধানীর শান্তিনগর থেকে বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এ শোক মিছিলে অংশ নেন। বিএনপির শরিক দলের নেতাদের মধ্যে ছিলেন- খেলাফত মজলিসের আমির অধ্যক্ষ মাওলানা মো. ইসহাক, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, এনডিপির চেয়ারম্যান গোলাম মোর্তজা, নেজামে ইসলাম পার্টির চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব, জাগপার সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, ইসলামিক পার্টির চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুল মোবিন প্রমুখ। এছাড়াও  চরমোনাই পীরের দল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ঢাকা মহানগরী আমির এটিএম হেমায়েত উদ্দীন, মুসলিম লীগের নুরুল হক মজুমদার উপস্থিত ছিলেন। এদিকে জোটের অন্যমত মিত্র জামায়াতের সাবেক আমিরের মৃত্যুতে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো শোক জানায়নি বিএনপি। দলের ভারপ্রাাপ্ত মহাসচিবের কাছে এ বিষয়ে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে তিনি তা এড়িয়ে যান।

গুশলানে খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল বলেন, “এটা আজকের সংবাদ সম্মেলনের বিষয় না। যে বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয়েছে তা সবই বলেছি।”
এর আগে শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় গোলাম আজমের মৃত্যুতে ব্যক্তিগতভাবে সমবেদনা জানান। গোলাম আজমের মৃত্যু প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এ বিষয়ে দলের অবস্থান জানি না, তবে গোলাম আযমের মৃত্যুতে আমি তার পরিবারের প্রতি শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করছি।” দলের প্রচার সম্পাদক ও সাবেক বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুকও ব্যক্তিগতভাবে শোক জানিয়েছেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক অনুষ্ঠান তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “একজন প্রবীণ রাজনীতিবিদ এবং ভাষাসৈনিক হিসেবে গোলাম আযমের প্রতি আমার সমবেদনা রয়েছে।” এদিকে বাংলাদেশের কওমি মদ্রাসাভিত্তিক ধর্মভিত্তিক দলগুলোর নেতারা গোলাম আযমের মৃত্যুতে বিবৃতি, বক্তব্য ও সামাজিক যোগাযোগ সাইটে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে শোক প্রকাশ করেছেন। যদিও জামায়াতের সঙ্গে তাদের রয়েছে আদর্শিক বিরোধ। ২০ দলীয় জোটের শরিক খেলাফত মজলিসের আমির মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক ও মহাসচিব অধ্যাপক আহমদ আবদুল কাদের গোলাম আযমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তাদের দল খেলাফত মজলিসও শোকাহত।

Facebook Comments
শেয়ার করুন