মেয়র মান্নান গ্রেপ্তার

0
28
Print Friendly, PDF & Email
Gazipur-city-Meyor-Mannan-Arrested-BM

স্টাফ রিপোর্টার: গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক এম এ মান্নানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার বিকেলে রাজধানীর ডিইউএইচএসের বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। সন্ধ্যায় পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তার গ্রেপ্তারের বিষয়টি জানানো হয়। পুলিশ জানায়, মেয়র মান্নানের বিরুদ্ধে সাংবাদিক বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। এছাড়া গাড়িতে অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর, নাশকতায় অর্থযোগান দাতা ও উসকানিদাতা হিসেবে তার বিরুদ্ধে আরও দুটি মামলা রয়েছে। সংবাদ ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ জানান, কতিপয় সুস্পষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে অধ্যাপক এম এ মান্নানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে জয়দেবপুর থানায় তিনটি মামলা রয়েছে। গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ, নাশকতার জন্য অর্থের যোগানদাতা, পরিকল্পনাকারী ও উসকানিদাতা হিসেবে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এছাড়া গার্মেন্টস শ্রমিকদের উসকানিদাতা এবং গাজীপুরের মহাসড়কগুলো দিয়ে চলাচলকারী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানে অগ্নিসংযোগে প্ররোচিত করারও অভিযোগ রয়েছে। তাকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

সূত্রমতে, গেল বছরের ২৭ ডিসেম্বর গাজীপুরে বিএনপির ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলাকালে গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে সিটি মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নন, জেলা বিএনপির সভাপতি একেএম ফজলুল হক মিলনসহ ৩০ নেতাকর্মীর নামে মামলা দায়ের করা হয়। গাজীপুর মহানগরের বড়বাড়ি এলাকায় একটি মাইক্রোবাস ও একটি লেগুনা ভাঙচুরের অভিযোগে এ মামলাটি দায়ের করেন এমএ ফরিদ নামের এক ব্যক্তি। মামলায় অজ্ঞাতনামা আরো ১৫/২০ জনকে আসামি করা হয়। ২০১৪ সালের ৯ নভেম্বর গাজীপুরে পুলিশের সরকারি কাজে বাধাদান, পুলিশ সদস্যদের লাঠিসোটা ও ইট পাটকেল দিয়ে আহত করাসহ বিভিন্ন অভিযোগে গাজীপুর সিটি মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নানকে প্রধান আসামি করে জয়দেবপুর থানায় আরেকটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলায় ৪০ জনের নাম উল্লেখসহ বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের ৩০০-৪০০ অজ্ঞাতনামা নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়। জয়দেবপুর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মাহমুদুল হাসান-২ বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

আগের দুটি মামলায় মেয়র আদালত থেকে জামিন লাভ করলেও সর্বশেষ গত ৪ ফেব্রুয়ারি গাজীপুরে যাত্রীবাহী বাসে পেট্রলবোমা হামলা মামলায় অধ্যাপক এমএ মান্নানকে প্রধান আসামি করে পুলিশ যে মামলাটি দায়ের করে তাতে মেয়র পলাতক ছিলেন। মেয়র মান্নানের গ্রেপ্তারের পর এলাকায় বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Facebook Comments
শেয়ার করুন