গুলিস্তানে হকার উচ্ছেদে ছাত্রলীগের পিস্তল দিয়ে গুলি

0
44
Print Friendly, PDF & Email

রাজধানীর গুলিস্তানে গতকাল বৃহস্পতিবার ফুটপাতের অবৈধ দোকান উচ্ছেদের সময় হকারদের সঙ্গে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) কর্মচারী ও একদল যুবকের দফায় দফায় পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়েছে। কয়েকটি ফাঁকা গুলিও হয়েছে। দুই যুবকের হাতে দেখা গেছে পিস্তল ও রিভলবার। তাঁদের একজনকে ফাঁকা গুলি ছুড়তে দেখা গেছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কয়েকজন আহত হলেও নগরের ব্যস্ততম ওই এলাকায় চলাচলকারীদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। রাজধানীর ভেতরে ও আশপাশের গন্তব্যে চলা গণপরিবহনের প্রধান কেন্দ্র গুলিস্তান। এ সংঘর্ষের কারণে এখানে প্রায় তিন ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। আশপাশের সড়কগুলোতেও সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট। আগ্নেয়াস্ত্রধারী দুজনের মধ্যে একজন হলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির হোসেন। অন্যজন ওয়ারী থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান। এঁদের মধ্যে সাব্বির হোসেন দাবি করেন, তিনি সেখানে গেলেও তাঁর সঙ্গে কোনো অস্ত্র ছিল না। আর রাত পৌনে একটা পর্যন্ত পাঁচবার আশিকুরের মুঠোফোন নম্বরে ফোন করলেও তিনি ধরেননি। সংঘর্ষের পর মেয়র সাঈদ খোকন ঘটনাস্থলে যান। তিনি উপস্থিত সংবাদিকদের বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশে শহরের ফুটপাত দখলমুক্ত করতে ধারাবাহিকভাবে উচ্ছেদ অভিযান চলবে৷ এতে কেউ বাধা দিলে কঠোরভাবে তাদের দমন করা হবে৷ প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও ডিএসসিসির কর্মকর্তারা বলেন, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দুজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ডিএসসিসির ভ্রাম্যমাণ আদালত গুলিস্তানে বঙ্গবন্ধু স্কয়ার পাতাল মার্কেটে অভিযান চালান। সেখানে চলার পথে দোকান বসানো নয়জনকে মোট ৪৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। জব্দ করা হয় ওইসব অবৈধ দোকানের মালামাল। পাতাল মার্কেট দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন এই উচ্ছেদে বাধা দেওয়ায় ও ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে অসদাচরণ করায় তাঁকে আটক করে নগর ভবনে নিয়ে যান আনসার সদস্যরা৷

Facebook Comments
শেয়ার করুন