সংসদ ভেঙ্গে সেনা মোতায়েন করে নির্বাচন দিতে হবে : মওদুদ

0
12
Print Friendly, PDF & Email
ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ফাইল ছবি

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, অন্ততপক্ষে নির্বাচনের ৯০ দিন আগে বর্তমান সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে। আগামী নির্বাচনে সম্পূর্ণ ম্যাজিস্ট্রেসি পাওয়ার দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে। তাহলে দেশের মানুষ আশ্বস্থ হবে।

আজ শনিবার দুপুরে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মওদুদ আহমদ এসব বলেন।

রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের ভুমিকা’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করে ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি)।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মওদুদ আহমদ একাদশ জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে বলেন, একটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার দিতে হবে, নির্বাচনের ৯০ দিন আগেই বর্তমান সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে এবং ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে। যাতে করে তারা নির্বাচনকে সত্যিকার অর্থে একটি কার্যকর নির্বাচন করার ভুমিকা পালন করতে পারে।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে সরকার কূটনৈতিকভাবে ব্যর্থ হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের জন্য রোহিঙ্গা ইস্যু প্রকট আকার ধারণ করেছে। আনুষ্ঠানিকভাবে ৬ লাখ বলা হলেও প্রায় ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ এসেছে। সরকার এই জটিলতা আরো জটিলতর করছে। জাতিসংঘ একটা কিছু করার চেষ্টা করছে কিন্তু পারছেনা।

আজকে ভারত, চিন ও রাশিয়া সমর্থন দিচ্ছেনা। অথচ বাংলাদেশে তাদেরকে এতো বেশি বিনিয়োগের সুবিধা দিয়েছেন তাহলে রোহিঙ্গা ইস্যুতে সমর্থন আদায় করতে পারছেননা কেনো? আসলে এই জটিলতার জন্য সরকারই দায়ী। তারা কূটনৈতিকভাবে ব্যর্থ।

মওদুদ আহমদ বলেন, সরকারের উচিৎ হবে ভারত, চিন ও রাশিয়াকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের সমর্থনে আনা। জাতিসংঘে প্রকাশ্যে তাদেরকে স্ট্যান্ড নিতে হবে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘ যে উদ্যোগ নিয়েছে তাতে তাদের সমর্থন দিতে হবে। তাহলে হয়তো রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান সম্ভবপর হবে। তা না হলে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সফর সম্পূর্ণরুপে ব্যর্থ হবে।

সরকারকে অবিলম্বে রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারত, চিন ও রাশিয়ার কূটনৈতিক সমর্থন আদায়ের আহ্বান এবং যতদ্রুত সম্ভব রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানের আহ্বান জানান। তা না হলে সমাজে অস্থিরতা ও জটিলতা বাড়বে। আর এধরনের পরিস্থিতির জন্য ভবিষ্যতে দেশের মানুষ বর্তমান সরকাকে দায়ী করবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
এনপিপির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় এনপিপির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

Facebook Comments
শেয়ার করুন