বর্ষ ১ - সংখ্যা ৪৯

সংবাদ শিরোনাম :
নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবেঃ অধ্যাপক ডা. এসএম রফিকুল ইসলাম বাচ্চু: শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করন সময়ের দাবী: সিলেটে ত্রান না পাওয়ার অভিযোগ করায় অভিযোগকারিকে আওয়ামীলীগ নেতার মারধর: ইউএনও’র বিরুদ্ধে মামলা প্রভাবশালীদের ইন্ধনে!: আন্তর্জাতিক পাবলিক সার্ভিস দিবস আজ: গাজীপুর আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা: কালীগঞ্জে অসহায় গ্রামবাসীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ প্রদান: বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক ঘুরে দেখলেন সজিব ওয়াজেদ জয়: বিএনপির সদস্য হতে নারী ও তরুণদের ব্যাপক আগ্রহ: ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ নিয়ে সমালোচনায় ট্রাম্প: ইরানের পরমাণু সমঝোতা বাস্তবায়ন করুন : চীন: মার্চেই প্রাথমিকে ১৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগ : গাজীপুরে অস্ত্র ও গুলিসহ ৬ ডাকাত আটক: গাজীপুর আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আ.লীগ প্যানেল জয়ী: গাজীপুরের শ্রীপুরে সড়কে গর্ত ও ধুলায় জনদুর্ভোগ চরমে:
A+ A A-

এক বছর পার হলেও কেন্দ্রীয় ছাএলীগ নেতার হামলাকারিরা কেউ গ্রেফতার হয়নি

ঘটনার বিবরনে প্রকাশ, কালিগন্জের জামালপুরে একই পরিবারের তিনভাই তিন দলের পোষ্টধারী নেতা। একজন হলো ছাএলীগ/অন্যজন ছাএদল/আরেকজন ছাএশিবির। জামালপুর কলেজে বাদশা ছাএলীগ করে, তার আপন ভাই রাজা কালিগন্জ থানা ছাএদলের সমাজসেবা সম্পাদক আর তার আরেক ভাই মনির ইসলামি ছাএশিবিরের কালিগন্জ থানার সহ-সভাপতি।কি বিচিএ ও অদ্ভূত আদর্শিক রাজনীতি। এ যেনো হিন্দী ছবির ফাটাকেষ্টর চেয়েও ভয়ংকর। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামিলীগ থেকে আজীবন বহিঃষ্কৃত একই বংশের খাইয়ুল আলমের নির্বাচনে সরাসরি প্রচারনা চালিয়েও এখন বুক ফুলিয়ে বীরদর্পে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে এই মানুরুপী জানোয়াররা।কি বিচিএ এদেশের রাজনীতি।যেনো কেউ নেই দেখার। হারহামেশা চাদাবাজি,ধার নিয়ে টাকা ফেরত না দেয়া,বাজারের দোকানদারদের কাছ থেকে বাকী খেয়ে টাকা না দেয়া,হিন্দুদের জমি একের পর এক অবাধে দখল নেয়া, হিন্দুদের ভয়ভীতি দেখানো,সুষেন মাষ্টার ও শুক্কুর,মানিকদের জায়গা নাম মাএ মূল্য দিয়ে জোর করে লিখে নেয়া, সুধন/রাখাল/রন্জনরা থানায় জিডি করলে তাদের মারধর করা এই সবই ছিলো নিত্য নৈমওিক ব্যাপার। যা এখনো চলছে তো চলছে। - """এক বছর পার হলেও কেন্দ্রীয় ছাএলীগ নেতার হামলাকারিরা কেউ গ্রেফতার হয়নি""। কালা হাসান নামের ছেলেটি এতোই বেপোরোয়া যে নেশার টাকার জন্য চুরি/ছিনতাই/মানুষকে ঠেক দেয়া সহ এহেন কাজ নেই যে প্রতিদিন সে করছেনা।এগুলো এখন এলাকার মানুষের মুখে মুখে সবাই জানে শুধু ভয়ে বলতে পারেনা। '' কেন্দ্রীয় ছাএলীগ নেতা মনিরুজ্জামান অরুন {সহ-সম্পাদক-রিপন-রোটন কমিটি} ও ঢাকা কলেজ ছাএলীগ (পলাশ-ফিরোজ) কমিটির গ্রন্থনা ও প্রকাশন সম্পাদক ও পরবর্তী (সহীর-টুটুল) কমিটির সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান অরুনকে তার ভাই আসাদুজ্জামান বরুন-কালিগন্জ থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক। তার ভাইয়ের সাথে রাজনৈতিক জের ধরে তার বড় ভাই এ,কে,এম মনিরুজ্জামান (অরুনকে) সেভেন রিংস সিমেন্ট ফ্যাক্টরী থেকে ফেরার পথে তার বাড়ির সামনে আসাদুজ্জামান বরন (থানা সেচ্ছাসেবকলীগ সাঊধারন সম্পাদক। ও থানা আওয়ামওলীগের সহ-দপ্তর সম্পাদক।বরুনের সাথে শত্রুতার জের ধরে গত ১২-০৪-২০১৫তারিখে রাত নয়টার সময় আমাকে মারধর করে টাকা পয়সা,দামি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়।তখন আমার আর্ডতচিৎকারে আমারবাড়ীর লোকজন আমাকে বাচাতে সক্ষম হয়।অতপর আমি সকল নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা ও তাদের নির্দপেশনা মোতাবেক পরামর্শ করে গত গত ১৯-০৪-২০১৫ তারিখে আমার ছোট ভাই আসাদুজ্জামান বরুন বাদী হয়ে কালিগন্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। কিন্ত আজ একবছর পার হয়ে গেলেও কোন আসামি তো গ্রেফতার দূরের কথা কোন বিচার ও পাইনি। এমনকি তারা নানাভাবে আমাদের পরিবারের লোকজনদের মেরে ফেলা,আমার বাচ্চাকে কিডনাপ করা,বাড়িগড়ে জামালপুর বাজারেরর মতো আগুন দিয়ে পুরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। এমত অবস্থায় আমার ছেলের স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি। এ ব্যাপারে আমি ও আমার পরিবার চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভূগছি। সকল পেশার মানুষের সাহায্য কামনা করছি ও মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মেহের আফোজ চুমকি আপার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। দয়া করে বাচান আমাদের এই জোর আকুল মিনতি আপমার কাছে। দয়া করুন।